বিশ্বের ১৪ দেশে গণহারে ভ্যাকসিনের প্রয়োগ চলছে

0
790

করোনাভাইরাস মহামারী ঠেকাতে বিশ্বের অন্তত ১৪টি দেশে এখন গণহারে ভ্যাকসিনের প্রয়োগ চলছে। দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাজ্য, সংযুক্ত আরব আমিরাত, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, সৌদি আরব, ইসরায়েল, কাতার, মেক্সিকো, সার্বিয়া, কুয়েত, চিলি, রাশিয়া, চীন, কোস্টারিকা। সূত্র : রয়টার্স, বিবিসি, আল জাজিরা।

যুক্তরাজ্য : গত ৮ ডিসেম্বর মার্গারেট কিনান নামের ৯০ বছরের ব্রিটিশ বৃদ্ধা বিশ্বের প্রথম ব্যক্তি হিসেবে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বাইরে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন নিয়েছেন। যুক্তরাজ্যে ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু হওয়ার কয়েকদিনের মাথায় দেশটিতে কঠোর লকডাউন জারি করা হয়েছে। দেশটিতে করোনার নতুন স্ট্রেইন শনাক্ত হওয়ার পর এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাত : ১৪ ডিসেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে করোনা ভ্যাকসিন প্রথম প্রয়োগ করা হয়। তেল সমৃদ্ধ উপসাগরীয় দেশটি ফাইজার-বায়োএনটেক ও চীনের উদ্ভাবিত সিনোফার্ম ভ্যাকসিনকে গণহারে প্রয়োগের অনুমোদন দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র : ১৪ ডিসেম্বরই যুক্তরাষ্ট্রে ফাইজারের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়। প্রথম মার্কিন নাগরিক হিসেবে নিউইয়র্ক সিটির ক্রিটিক্যাল কেয়ার নার্স সান্দ্রা লিন্ডসে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন। ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন অনুমোদন পাওয়ার পর ১০ লাখের বেশি মানুষ তা নিয়েছেন। দ্বিতীয় ভ্যাকসিন হিসেবে মডার্নার উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

কানাডা : কানাডায় প্রথম ফাইজারের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয় ১৪ ডিসেম্বর। দেশটির কুইবেকের ৮৯ বছরের বৃদ্ধা প্রথম রোগী হিসেবে এই ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন। প্রতিবেশী যুক্তরাষ্ট্রের মতোই উত্তর আমেরিকার দেশটি মডার্নার ভ্যাকসিনকেও প্রয়োগের অনুমতি দিয়েছে। বৃহস্পতিবার মডার্নার ভ্যাকসিনের প্রথম চালান কানাডা পৌঁছেছে।

সৌদি আরব : আরব উপদ্বীপের প্রথম দেশ হিসেবে করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করেছে সৌদি আরব। ১৭ ডিসেম্বর দেশটিতে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়। সৌদি আরবে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৬০ হাজারের বেশি মানুষ এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ১৪৮ জনের।

ইসরায়েল : ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার মধ্য দিয়ে দেশটিতে জাতীয়ভাবে টিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। ৭১ বছরের নেতানিয়াহু ও তার স্বাস্থ্যমন্ত্রী তেল আবিবের একটি হাসপাতালে টেলিভিশনে লাইভ সম্প্রচারের মাধ্যমে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন।

কাতার : ২২ ডিসেম্বর ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন পৌঁছার পর বিনামূল্যে টিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু করেছে কাতার। দেশটির প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে তিন সপ্তাহের ব্যবধানে দুটি করে ডোজ প্রদান করা হবে। মডার্না ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য চুক্তি করে রেখেছে উপসাগরীয় দেশটি।

মেক্সিকো : ২৪ ডিসেম্বর গণ ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু করেছে দেশটি। এখানে প্রথম ভ্যাকসিন নিয়েছেন একজন নার্স। বেলজিয়াম থেকে বিমানে আসা ৩ হাজার ডোজ ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনের প্রথম চালান দেশে আসার একদিনের মাথায় এই টিকা প্রদান শুরু হয়। ভ্যাকসিন প্রদানের উদ্বোধন টিভিতে প্রচার করা হয়।

সার্বিয়া : বলকান দেশটিতে ২৪ ডিসেম্বর ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়। প্রথম ব্যক্তি হিসেবে ফাইজারের ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী আনা ব্রনাবিক।

কুয়েত : ২৪ ডিসেম্বর আরব দেশ কুয়েতেও ভ্যাকসিন প্রদান শুরু হয়। ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনা ভ্যাকসিনের দেড় লাখ ডোজ পেয়েছে কুয়েত।

চিলি : লাতিন আমেরিকার দ্বিতীয় দেশ হিসেবে ২৪ ডিসেম্বর চিলিতেও করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়। ৪২ বছর বয়সী নার্স জুলেমা রিকুয়েলমি প্রেসিডেন্ট সেবাস্টিয়ান পিনেরার উপস্থিতিতে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন।

রাশিয়া : রুশ সরকার জানিয়েছে, সেপ্টেম্বর থেকেই তাদের উদ্ভাবিত স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হচ্ছে। ১৩ আগস্ট রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন ঘোষণা দিয়েছিলেন, বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ভ্যাকসিন অনুমোদন দিয়েছে রাশিয়া।

কোস্টারিকা : ২৩ ডিসেম্বর ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম চালান পেয়েছে কোস্টারিকা। বৃহস্পতিবার হুইল চেয়ারে নির্ভরশীল ৯১ বছরের বৃদ্ধা এলিজাবেথ কাস্টিলো দেশটিতে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর কাস্টিলো বলেন, ঈশ্বরের কাছে আমি অনেক কৃতজ্ঞ। কারণ তার কাছে অনেক কিছু চেয়েছি। আমার কাছে আমার জীবন অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই যে কোনো মুহূর্তের সুযোগ আমি গ্রহণ করতে চাই। কোস্টারিকার প্রেসিডেন্ট কার্লোস আলভারাডো কুয়েসাদা বলেছেন, ভ্যাকসিন প্রয়োগ মহামারী অবসানের সূচনা হতে পারে।

সিনোভ্যাকের টিকার ব্যবহার করবে তুরস্ক : চীনের টিকা উদ্ভাবন ও প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাকের টিকার ব্যবহার শুরু করবে তুরস্ক। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহরেত্তিন কোচা গত বৃহস্পতিবার বলেন, সিনোভ্যাকের টিকার প্রথম চালান কয়েক দিনের মধ্যে পেতে যাচ্ছে তার দেশ। তুরস্কে প্রাথমিকভাবে চালানো পরীক্ষার ফলাফলে সিনোভ্যাকের টিকা প্রায় ৯১ শতাংশ কার্যকর বলে দেখা যায়। এরপরই দেশটি সিনোভ্যাকের টিকার ব্যবহার শুরু করবে বলে জানাল। খবরে বলা হয়, তুরস্ক প্রাথমিকভাবে সিনোভ্যাকের ৩০ লাখ ডোজ টিকা পেতে যাচ্ছে। আগামী মাসে টিকাদান শুরু হলে সিনোভ্যাকের কাছ থেকে তুরস্কের আরও টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে। তুর্কি স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহরেত্তিন কোচা জানান, সিনোভ্যাকের টিকার প্রথম চালান আগামী রবিবার তুরস্কে পাঠানো হবে। তুরস্ক শুরুতে স্বাস্থ্যকর্মী ও সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা লোকজনকে করোনার টিকা দেবে। তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, টিকার জন্য আঙ্কারা কয়েক দিনের মধ্যে ফাইজার-বায়োএনটেকের সঙ্গেও একটি চুক্তি করবে। ফাইজার-বায়োএনটেকের কাছ থেকে ৪৫ লাখ ডোজ টিকা পেতে এই চুক্তিটি করা হবে। পরে তাদের আরও টিকা কেনার সুযোগ থাকবে।

তুরস্কে এখন পর্যন্ত প্রায় ২২ লাখ মানুষের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় দেশটিতে মারা গেছে ১৯ হাজার ১১৫ জন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে